শেফ/কিচেন ড্যাশবোর্ড

 

­­­­

এই টিওটোরিয়ালটি পড়লে আপনি বুঝতে পারবেন ওয়েবসাইটে গিয়ে কিভাবে আপনি আপনার কিচেন সম্পাদনা ও ফুড আইটেম তালিকাভুক্ত করতে পারবেন। টিওটোরিয়ালটি যদি আপনার নিকট দূর্বোধ্য মনে হয়, তাহলে দয়া করে আমাদের নিকট যোগাযোগ করুন।

 

১। প্রথমে আমাদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন – https://foodpeon.com

২। ওয়েবসাইটের ডান পাশে উপরে LOGIN/REGISTER লিংকে ক্লিক করুন।

৩। আপনার ইউজার নাম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগিন করুন।

৪। যদি আপনি সরাসরি ড্যাশবোর্ডে না গিয়ে থাকেন তাহলে নীচের ছবির মতো ওয়েবসাইটের ডান পাশে উপরে আপনার নামের উপর মাউস নিন অথবা টাচ করুন। একটি শেফ মেনু দেখতে পাবেন যেখানে অনেকগুলো সাব-লিংক দেখতে পাবেনঃ My Kitchen., Edit Kitchen, Store Settings, Submit new item, My items, My account etc.

আমরা মুলত কাজ করবো এই দুটো সাব লিংক বা ট্যাব নিয়েঃ EDIT KITCHEN ও SUBMIT NEW ITEM। উল্লেখ্য, যদি কোন কারনে আপনি এই মেনু না পেয়ে থাকেন তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

 

৫। EDIT KITCHEN – এ ক্লিক করুন। একটু অপেক্ষা করুন। নীচের ছবির মতো একটি পেইজ দেখতে পাবেন। নীচে দুটো ছবি একই পেইজের; এরপর বর্ণনা করবো কোন ফিল্ডে কি তথ্য দেয়া উচিত সেটা নিয়ে।

 

৬। Title: এটা হচ্ছে মুলত আপনার কিচেনের টাইটেল বা নাম। ধরুন, আপনি আপনার কিচেনের নাম দিতে চাচ্ছেন – Home Kitchen, তাহলে টাইটেলের ঘরে লিখুন – Home Kitchen

 

৭। Short Description: শর্ট ডিস্ক্রিপশন লেখা উচিত ৫-৬ শব্দের মধ্যে। এটা থাকে কিচেনের টাইটেলের ঠিক নীচেই। এই ৫-৬ শব্দ দেখে গ্রাহকরা বুঝতে পারে আপনার কিচেনে ঢুকলে মুলত কোন ধরনের খাবার পাওয়া যাবে। একটি উদাহরন দেখুন নিচের ছবিতে; লাল বক্সের ভিতর লেখাটা দেখে বুঝা যাচ্ছে কিচেনের ভিতর কোন আইটেম পাওয়া যাবেঃ

 

৮। Profile/Shop Photo: প্রতিটি কিচেনের একটি প্রোফাইল ছবি থাকে যেটা কিচেনকে রিপ্রেজেন্ট করে। সুন্দর একটি ছবি যেটা দেখে গ্রাহকরা প্রোফাইলে ঢুকতে চাইবে। সাধারনত এখানে আপনার যে কোন খাবারের ছবি দিলে ভালো।

 

৯। Banner/Cover Image (3-5 photos): প্রোফাইলে বা কিচেনের পেইজে ঢুকেই সবার উপরে বড় করে ব্যানার বা কাভার দেখা যায়। অনেকটা ফেসবুক পেইজের মতোই। ৩ টি থেকে ৫টি বা এর বেশী ইমেইজ ব্যবহার করলে ভালো। ছবি বেশি হলে ছবিগুলো বাম দিকে স্ক্রল করে।

 

 

১১। Your Location: আপনার লোকেশন লেখুন। পুরো ঠিকানা লিখবেন না, বরং শুধুমাত্র এলাকার নাম লিখুন। যেমনঃ Baridhara DOHS, Badda, Gulshan, Uttara, ogbazar, Mohammadpur, Mirpur

 

১২।

 

১৪। Submit: সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। সাবমিট বাটন ক্লিক করার পর একটি পেইজ আসবে যেখানে বলা হবে যে আপনার পোস্ট সাবমিট হয়েছে। যদি কোন পেইজ না আসে বা একই পেইজ আবার রিলোড হয় বা কোন এরর দেখায়, তাহলে দয়া করে আবার ফিল্ডগুলো চেক করুন কোথাও কোন ভুল করেছেন কিনা। কোন ভুল না থাকলে আমাদের ফেসবুক পেইজে নক করুনঃ https://facebook.com/foodpeon

 

১৫। আমাদের প্রোফাইল/কিচেন আপডেট করা শেষ। অপেক্ষা করুন। ফুডপিয়নের একজন প্রতিনিধি আপনার কিচেনটি কিছুক্ষনের মধ্যে পাব্লিশ করে দিবে।

 

 

আমাদের এখন কাজ হবে ফুড আইটেম আপলোড করা বা তালিকাভুক্ত করা। মনে রাখতে হবে, প্রতিবারে একটি করে ফুড আইটেম তালিকাভুক্ত করা যাবে। শেফ ড্যাশবোর্ড বা ড্রপ ডাউন মেনু থেকে আমরা নির্বাচন করবো – SUBMIT NEW ITEM

 

 

১। Title: আপনার খাবারের আইটেমের নাম। Chicken Biryani, Roshogolla, Italian Pasta – এরকম যে নামে আপনার খাব্রকে চিনে থাকবে গ্রাহকরা।

২। Description: এখানে আপনি আপনার খাবারের সম্পর্কে প্রচুর কথা লিখতে পারবেন। মনে রাখবেন, আপনি যত বেশী তথ্য দিবেন তত বেশী গ্রাহকরা আপনার আইটেমের প্রতি আকৃষ্ট হবে। এখানে যে সব তথ্য থাকতে পারেঃ (সব তথ্য বাধ্যতামূলক নয়, তবে গ্রাহক অর্ডার করলে কি পরিমান পাবে এটা দেয়া উচিত)

  • কিভাবে বানানো হয়
  • কি কি ব্যবহার করা হয়
  • কতোজনের জন্য বানানো হয়
  • গ্রাহক এই খাবার অর্ডার করলে কি পরিমান পাবে

 

৩। Short Description: ৫-৬ শব্দের মাঝে আপনার খাবার সম্পর্কে বলুন। দেখুন অন্যরা কি লিখে। সাধারনত এখানে গ্রাহকরা কি পরিমান পেতে যাচ্ছে সেটা উল্লেখ করলে ভালো।

৪। Food’s Photo: যতো চমৎকার ছবি, তত বেশী সম্ভাবনা বিক্রয়ের। একটি মাত্র ছবি দিন, কিন্তু নিজের খাবারের ছবি সুন্দরভাবে তুলে দিন। আগাছোলাভাবে ছবি তুলে দিলে বা নেট থেকে নামিয়ে দিলে বিক্রয় হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়।

৫। Regular Price: শুধুমাত্র দাম লিখুন। ইংলিশে নাম্বার লিখুন। কমা, ডট, টাকা, Tk – এগুলো কিছুই লিখবেন না। এই দামটি সাধারনত প্রতিটি ইউনিটের হয়ে থাকে। অর্থাৎ, আপনি যদি চিতি পিঠা বিক্রয় করেন, তাহলে প্রতি পিস চিতই পিঠার দাম লিখুন এখানে। যেমনঃ 25

আপনি যদি বিরিয়ানী বিক্রয় করে থাকেন, তাহলে একজনের জন্য দাম লিখুন এখানে। যেমনঃ 200

৬। Food Category: প্রতিটি খাবার কোন না কোন ক্যাটাগরির আওতাভুক্ত। আপনার খাবার যদি দুটো ক্যাটাগরির আওতায় আনতে চান তাহলে উপরের ডিস্ক্রিপশনে (Description) লিখে দিন অন্য ক্যাটাগরির নাম। আমরা যুক্ত করে দিবো।

৭। Group: আপনার কিচেনে অনেক খাবার থাকলে সেটাকে গ্রুপ-ওয়াইজ সাজানো ভালো। যদি গ্রুপ না করেন তাহলে দেখা যাবে মেইন ডিশ, সাইড ডিশ, ডেজার্ট, বেকারী, কেক ইত্যাদি সব একাকার হয়ে যাবে। এর চেয়ে ভালো যদি আপনি আইটেম ভেদে কয়েকটি গ্রুপে ভাগ করে দিন। অন্যদের প্রোফাইল দেখলেই বুঝবেন আইটেম গুলো গ্রুপ গ্রুপ করে রাখা আছে।

৮। Minimum Order Qty: একটি খাবার আইটেম আপনাকে কতোজনের জন্য নূন্যতম অর্ডার করতে হবে? ধরুন, আপনি পিঠা বিক্রয় করবেন। আপনার একটি পিঠার দাম ২৫ টাকা। কিন্তু কাস্টমার একটি পিঠার অর্ডার করলে নিশ্চই আপনি বানাবেন না!! আপনাকে হয়তো ১০টি অর্ডার করতে হবে নূন্যতম। সেক্ষেত্রে এখানে শুধু লিখুন – 10

আবার ধরুন আপনি পাস্তা বিক্রি করবেন ১ কেজি। ১ কেজি পাস্তার দাম ধরেছেন ৫০০ টাকা। এবং একজন যদি এই এক কেজি পাস্তা অর্ডার করে, আপনি এই এক কেজিই উনার জন্য বানাবেন। সেক্ষেত্রে এখানে হবে – 1

মোদ্দা কথা, এটা মাথায় রাখুন যে কাস্টমার যখন অর্ডার করবে তথন উনাকে পে করতে হবে –

Price * Minimum Order Quantity.

আপনার আইটেমের মূল্য যদি ১০০ টাকা হয়, আর আপনি যদি মিনিমাম অর্ডার কোয়ান্টিটি ১০ দিয়ে রাখেন, তাহলে কাস্টমারকে পে করতে হবে ১০০০ টাকা।

১০। Minimum Preparation Time: এই খাবারটি আপনি কতক্ষন আগে অর্ডার নিতে/পেতে চান? অর্থাৎ, আপনাকে কতক্ষন আগে অর্ডার করলে আপনি খাবারটির অর্ডার নিতে পারবেন। সাধারনত একেক খাবারের জন্য একেকরকম প্রিপারেশন/কুকিং টাইম এর প্রয়োজন হয়। বিরিয়ানী রান্নার জন্য কেউ ৪ ঘন্টা আবার কেউ ১ দিন সময় নিয়ে থাকে। যদি ৩ ঘন্টা সময় দিলে আপনি এই খাবারটি তৈরী করে দিতে পারেন, তাহলে লিখুন – 3 Hours

যদি আপনাকে আগের দিন অর্ডার করতে হয়, তাহলে লিখুন – 1 day

১১।

১২।

১৩। Submit: সব লেখা শেষ হলে সাবমিট বাটনে চাপ দিন। সাবমিট বাটন ক্লিক করার পর একটি পেইজ আসবে যেখানে বলা হবে যে আপনার পোস্ট সাবমিট হয়েছে। যদি কোন পেইজ না আসে বা একই পেইজ আবার রিলোড হয় বা কোন এরর দেখায়, তাহলে দয়া করে আবার ফিল্ডগুলো চেক করুন কোথাও কোন ভুল করেছেন কিনা। কোন ভুল না থাকলে আমাদের ফেসবুক পেইজে নক করুনঃ https://facebook.com/foodpeon

 

উপরের টিওটোরিয়ালটি আপনাদের সাহায্যের জন্য তৈরী করা হয়েছে। প্রথমবার কঠিন মনে হলেও একবার একটি ফুড আইটেম আপলোড করার পর পরবর্তীতে সহজ মনে হবে। যদি কোন ধরনের সাহায্যের প্রয়োজন হয় তাহলে দয়া করা আমাদের পেইজে নক করুন। এছাড়া আমাদের কলও করতে পারেন আমাদের হটলাইনে। এছাড়া, নূন্যতম চার্জের বিনিময়ে ফুডপিয়ন আওনার কিচেন প্রস্তুতসহ ফুড আইটেমও তালিকাভুক্ত করে দিচ্ছে।

 

হ্যাপি সেলিং!